কাঁকরোল ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করবে

কাঁকরোল ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করবে

সবজি হিসেবে পরিচিত কাঁকরোলে রয়েছে অনেক উপকারিতা। স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, নিয়মিত শরীরচর্চা ও পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের মাধ্যমে যেকোনো অসুখ-বিসুখ থেকে দূরে থাকা সম্ভব। গায়ে ছোট ছোট কাঁটাযুক্ত এই সবজি দিয়ে ভর্তা, ভাজি ইত্যাদি খাওয়া হয়। অনেকে এর পুষ্টিগুণ না জেনে অবহেলা করে খাবার তালিকা থেকে দূরে রাখেন। তাই সবার জন্য এর উপকারিতা জেনে নেয়া জরুরি।

 

১০০ গ্রাম কাঁকরোলে থাকে মাত্র ১৭ ক্যালরি তাই যারা ওজন কমাতে চান তাদের পাতে রাখতে পারেন কাঁকরোল। এই সবজি খেলে বাড়ে হজমশক্তি ও। কাঁকরোল ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে দীর্ঘক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখতে সাহায্য করে।

 

কাঁকরোলে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিজেন এবং ভিটামিন ‘এ’, ‘সি’। শরীরের জন্য উপকারী বিভিন্ন খনিজ পদার্থ মিলবে এই সবজিতে। তাই খাবারের তালিকায় কাঁকরোল রাখার মানে হলো সুস্থতার দিকে একধাপ এগিয়ে যাওয়া।

 

ক্যান্সারের প্রধান কারণ হলো শরীরে ফ্রি র্যাডিকেলের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া । কাঁকরোলে ভিটামিন ‘সি’ অনেক বেশি থাকে যা প্রাকৃতিক অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি শরীরের ফ্রি র্যাডিকেলের সংখ্যা কমাতে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে। কাঁকরোলে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে পারে।

 

কাঁকরোলের রয়েছে হাইপোগ্লাইসেমিক গুণ। এটি অগ্নাশয়ের বিটাসেলকে সুরক্ষিত রাখে ও পুনর্গঠনে সাহায্য করে। এছাড়া এটি ইন্স্যুলিন নিঃসরণ ও সংবেদনশীলতা বাড়ায় যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। কম ক্যালরির ও ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার হওয়ায় এটি রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাতে এটি কার্যকরী।

 

ক্যান্সারের প্রধান কারণ হলো শরীরে ফ্রি র্যাডিকেলের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া । কাঁকরোলে ভিটামিন ‘সি’ অনেক বেশি থাকে যা প্রাকৃতিক অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি শরীরের ফ্রি র্যাডিকেলের সংখ্যা কমাতে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে। কাঁকরোলে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে পারে।

 

এই সবজিতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’ এবং ‘সি’। এগুলো ত্বকের যেকোনো রোগ নিরাময় করতে ভূমিকা রাখে। রয়েছে অ্যান্টি অক্সাইড যা বাইরের রোদ ধোঁয়া, ধুলো এবং দূষণের হাত থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

 

হজমের সমস্যা থাকলে পাতে রাখুন কাঁকরোল। কারণ কাঁকরোলে হাই ফাইবার এবং প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা হজমের সমস্যা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে।

 

এছাড়াও শরীর ভালো রাখতে পাতে রাখুন মৌসুমী সব সবজি ও ফল। খাবার গ্রহণে একটু সচেতন হলেই অসুখ-বিসুখ রুখে দেয়া সম্ভব। নিজের পাশাপাশি পরিবারের অন্যান্য সদস্যর সুস্থতা নিশ্চিত করতে তাই পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করুন।

 

এইচএন/এএ/পিআর

Check Also

সুস্থ থাকতে নিয়মিত খান কচি বাঁশ।

সুস্থ থাকতে নিয়মিত খান কচি বাঁশ।

প্রচলিত জনপ্রিয় ধারার একটি শব্দ বাঁশ। একে অপরকে ক্ষতি করার ক্ষেত্রে অথবা উপহাস করার ছলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!