Breaking News
লকডাউনে কিস্তি আদায় করার সময় আশা সমিতিকে জরিমানা

লকডাউনে কিস্তি আদায় করার সময় আশা সমিতিকে জরিমানা

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে গ্রাহকের কাছ থেকে ঋণের কিস্তি আ’দায় করার সময় আশা সমিতির কালীগঞ্জ শাখাকে জরিমানা করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে শহরের ভূষণ স্কুল সড়কে আশা সমিতিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন কালীগঞ্জ উপজে’লা নির্বাহী অফিসার সুবর্ণা রাণী সাহা।

এ সময় কালীগঞ্জ থা’নার এসআই সাগর সিকদার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজে’লা নির্বাহী অফিসার সুবর্ণা রাণী সাহা জানান, মঙ্গলবার সকালে নিশ্চিন্তপুর এলাকায় ঋণের কিস্তি আ’দায় করতে যায় আশা সমিতির কর্মীরা।
এ সময় খবর পেয়ে তিনি সেখানে গিয়ে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে কিস্তি আ’দায় করায় আশা সমিতি কালীগঞ্জ শাখাকে ৫ হাজার টাকা করেন। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত কোনো সমিতি গ্রাহকের কাছ থেকে কিস্তি আ’দায় করতে পারবে না বলেও জানান তিনি।
আরও পড়ুন : ২ বছরের শিশুর বুদ্ধিতে বাঁচল অসহায় মায়ের প্রাণ। দু’বছরের একরত্তি শিশুর উপস্থিত বুদ্ধিতে বেঁচে গেল তার মায়ের প্রাণ। শিশুর উপস্থিত বুদ্ধি দেখে তার প্রশংসা করছে নেট দুনিয়া। ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের মোরাদাবাদ স্টেশনের। একজন পথবাসী মহিলা নিজের দুই শিশুকে নিয়ে থাকতেন স্টেশনে। স্টেশনই ছিল তাদের বাড়িঘর। ভিক্ষা করে কোন মতে দিন চলত তিনজনের। তবে লকডাউনের মধ্যে স্টেশনে কমে যায় মানুষের আসা-যাওয়া যার ফলে একপ্রকার বন্ধ হয়ে যায় রোজগার। এই অবস্থায় না খেতে পেয়ে দুর্বল হতে থাকে ওই দুই শিশুর মা। দুর্বলতার কারণে হঠাৎই অজ্ঞান হয়ে পড়েন ওই মহিলা।

ওই মহিলার বড় শিশুর বয়স দুই বছর। সে মাকে অজ্ঞান হয়ে পড়ে থাকতে দেখে বুঝতে পেরেছিল কোন অনর্থ ঘটেছে। হঠাৎ সে দেখে স্টেশনে টহল দিচ্ছেন কিছু আরপিএফ। এরপর ওই একরত্তি শিশু ছোট ভাইকে মায়ের কাছে রেখে ছুটে যায় সেই আরপিএফদের কাছে। কথা বলতে পারেনা তবে নিজের অঙ্গভঙ্গিতে বোঝানোর চেষ্টা করে তার মা অসুস্থ, এরপর পথ চিনিয়ে আরপিএফদের নিয়ে আসে নিজের মায়ের কাছে।
অচৈতন্য অবস্থায় পড়ে থাকা ওই মহিলাকে দেখতে পেয়ে সাথে সাথেই ব্যবস্থা নেয় রেল কর্তৃপক্ষ। চিকিৎসকদের কথায় এখন ভালো রয়েছেন ওই মহিলা। আর এই ঘটনার ভিডিও এই মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় যা দেখে রীতিমত অবাক নেটিজেনরা। শিশুর বুদ্ধির প্রশংসা করছেন সকলেই। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন আর কিছুটা দেরি হলে অনেক বড় বিপদ ঘটে যেতে পারত।
আপাতত ওই দুই শিশু আরপিএফদের তত্ত্বাবধানে রয়েছে, ওই মহিলার পরিচয় বা তার স্বামী কে সেই বিষয়ে কিছু জানা যায়নি এখনও পর্যন্ত, তবে তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ। মহিলার জ্ঞান ফিরলে বিষয়গুলি পরিষ্কার হবে।

Check Also

মাশরাফির বাসায় যাচ্ছেন ই-অরেঞ্জের ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা

মাশরাফির বাসায় যাচ্ছেন ই-অরেঞ্জের ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা

দেশীয় ই-কমা’র্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জ শপের বি’রুদ্ধে কোটি কোটি টাকার অর্ডার নিয়ে এখন পণ্য ডেলিভা’রি না …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!